1. admin@bijoyer-alo.com : admin :
  2. babul01713@gmail.com : Babul :
  3. videomidea.kabir@gmail.com : Kabir :
  4. armanik76@gmail.com : Manik :
  5. reza.s061@gmail.com : S Reza :
  6. md.sazu4@gmail.com : Sazu :
মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ১১:৫৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
বীরগঞ্জে কিডনি জনিত রোগে আক্রান্ত শিশু মামুনকে বাঁচাতে অসহায় পিতার আকুতি বীরগঞ্জে শ্রী শ্রী ধনগাঁও ধনেশ্বনরী মন্দির উদ্বোধন নীলফামারীতে যুব নেটওয়ার্ক এর উদ্যোগে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগে পিপিই বিতরণ। নীলফামারী-১ ডোমার-ডিমলা আাসনে আ’লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সুমি’র গণসংযোগ। মনপুরার জেলে ঘাটে নৌকা সাজিয়ে জেলেদের  নিরবতা পালন আটোয়ারীতে জাতীয় স্যানিটেশন মাস ও বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস উদযাপন ঠাকুরগাঁওয়ে ইয়াবাসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার চোখে দেখেনি কলেজের মুখ, নেই ছাত্রত্ব : একাধিক মামলার আসামী- কাপড় ব্যবসায়ী ফরহাদ দেবহাটা উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক! লামায় প্রধানমন্ত্রীর ছবি নিয়ে ব্যঙ্গ করায় ইউপি সদস্য আটক স্বাধীন ব্লাড ব্যাংক’র পক্ষে দেবহাটা প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দকে ফুলেল শুভেচ্ছা

 প্রসূতি চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রীর পাশে ‘মানবতার ফেরিওয়ালা’ চেয়ারম্যান আবু সাঈদ নেওয়াজ নিশাত

মিজানুর রহমান, লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ
  • শুক্রবার, ৯ অক্টোবর, ২০২০
  • ২৬
সম্প্রতি ধর্ষিতা চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী এবং তার সন্তানের চিকিৎসা এবং যাবতীয় সকল খরচ ব্যয় করে যাচ্ছেন বুড়িমারী ইউনিয়নের সুযোগ্য চেয়ারম্যান আবু সাঈদ নেওয়াজ নিশাত রহমান।
চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষিতা আমিনার চিকিৎসার জন্য নিজস্ব এ্যাম্বুলেন্সে রংপুর রোজ হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে দেন ,এর পর আমিনা ছেলে সন্তানের জন্ম দেয় তার ছেলে সন্তান এবং তার চিকিৎসার সকল খরচ ব্যায় করে যাচ্ছেন তিনি। এবং সবসময় তার পরিবার এবং তার চিকিৎসার খোঁজ খবর নিচ্ছেন, যদিও তার সহধর্মিণী খুবই অসুস্থ এমতাবস্থায়ও তিনি মানুষের সেবায় কখনো পিছপা হননি । শুধু ধর্ষিতা আমিনা খাতুনই নয় এরকম হাজারো পরিবারের পাশে সর্বদা বটগাছের ছায়া হয়ে আছেন বুড়িমারী ইউনিয়নের সুযোগ্য চেয়ারম্যান জনাব মোঃ আবু সাঈদ নেওয়াজ নিশাত রহমান।
লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারি ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের এক বখাটের হাতে বুড়িমারি ইসলামপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। এ ঘটনায় ওই শিশুটির বাবা বাদী হয়ে পাড়াপড়শি তহিদুল ইসলামের পাষন্ড ছেলে ধর্ষক ওয়াজেদ আলী (৩২) আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের পাটগ্রাম থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।গত ২৬.০৭.২০২০ ইং রাতে পাটগ্রাম থানায় লিখিত অভিযোগটি দায়ের করা হয়।
পাটগ্রাম থানায় দায়ের করা নির্যাতিতার বাবার অভিযোগের বিবরণে জানা গেছে , বুড়িমারি ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের তহিদুল ইসলামের ছেলে ওয়াজেদ আলী (৩২) গত জানুয়ারি মাসের ১৪ তারিখে ফাঁকা বাড়িতে ডেকে নিয়ে আনুমানিক ৫.৩০ মিঃ ফাঁঁকা বাড়ির দক্ষিণ সংলগ্ন জনৈক দুলালের বাসায় ডাকিয়া নেয় এবং মেয়ের ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। কিন্তু ঘটনার বিষয় ভবিষ্যতে প্রকাশ করিতে বাধা দিয়া প্রাণনাশের হুমকি দিলে আমার উক্ত মেয়ে প্রাণ ভয়ে প্রকাশ করে নাই। ঘটনার পর থেকেও আসামী ওয়াজেদ একাধিক দিন ডাকিয়া যৌন সঙ্গম করিলে আমার নাবালিকা মেয়ে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে, এর পর আমার মেয়ে গুরুত্বর অসুস্থ হয়ে পড়লে বুড়িমারি ইউনিয়নের সম্মানিত চেয়ারম্যান জনাব আবু সাঈদ নেওয়াজ নিশাত রহমান তার নিজস্ব অর্থায়নে আমার মেয়েকে তার নিজস্ব এ্যাম্বুলেন্সে রংপুর রোজ হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে দেন, এরপর আমার মেয়ে পুত্র সন্তান জন্ম দেয়, আমার মেয়ের চিকিৎসা এবং তার সন্তানের সকল খরচ ব্যায় করে যাচ্ছেন তিনি। এই দুঃসময়ে আমাদের পাশে চেয়ারম্যান সাহেব ছাড়া আর কেউ নেই, আমরা একবারে অসহায় একটি পরিবার।
এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা জানান, আমার মেয়ে অবুঝ, ওয়াজেদ আমার মেয়ের সর্বনাশ করেছে আমি তাঁর কঠিন বিচার চাই।অভিযোগের সূত্র নিয়ে বিষয়টি সরেজমিনে জানার চেষ্টা করলে মেয়েটির বড়বোন শাহিনা বলেন, আমার ছোটবোনকে দেখে সন্দেহ হয়,এরপর তাকে জিজ্ঞেস করলে সে আমাদের পাশ্ববর্তী ওয়াজেদের কথা বলেছে। সে নাকি তাকে বিয়ে করবে এই প্রলোভন দিয়ে অবৈধ মেলামেশা করেছে। আমার ছোটবোনের পেটে বাচ্চা আছে সে এবিষয়ে কিছুই বোঝেনা। শুধু বললো আমাকে বলতে নিষেধ করেছে। বললে নাকি মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছে। আমি বিষয়টি আমার মা – বাবা ও স্বামীকে তাৎক্ষনিক জানাই। আমার অবুঝ বোনের যে সর্বনাশ করেছে তাঁর কঠিন শাস্তি চাই।
মেয়েটির মা জানান, হামরা গরীব মানুষ, সারাদিন হামরা স্বামী- স্ত্রী পাথরের কাজ করি। এই সুযোগে সে মোর বেটির এমন সর্বনাশ করে। কেন সে মোর বেটির সর্বনাশ করলো তাঁর জানি কঠিন শাস্তি হয় ।
এ ঘটনায় বুড়িমারী ইউপি চেয়ারম্যান জনাব মোঃ নেওয়াজ নিশাত ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি ঘটনা শুনেই ভুক্তভোগীর বাড়িতে যাই এবং চতুর্থ শ্রেণীর ছোট্ট মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হয়েছে ঘটনাটি সত্যি বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে, এর পর মেয়েটি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে আমি আমার নিজস্ব এম্বুলেন্সে রংপুর রোজ হাসপাতালে ভর্তি এবং চিকিৎসা সেবা সহ সকল প্রকার খরচ এখন পর্যন্ত বহন করে আসছি। এরপর মেয়েটি পুত্র সন্তানের জন্ম দেন ,আমিনা এবং তার সন্তানের সকল খরচ আমি বহন করে আসছি। অপরাধী যেই হউক আইন অনুযায়ী অপরাধীর দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।
পাটগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা সুমন কুুুমার মহন্ত, ধর্ষণ অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ভুুুক্তভোগী মেয়ের বাবা এক‌টি অভিযোগ দিয়েছে। আমরা অভিযোগটিকে গুরুত্ব দিয়ে মামলাটি রেকর্ড করেছি। আসামীকে দ্রুত গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

নিউজটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরও খবর পড়ুন

আজকের দিনপঞ্জিকা

October ২০২০
Fri Sat Sun Mon Tue Wed Thu
« Sep    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১