Main Menu

আম্পানের প্রভাবে ঝড়-বৃষ্টিতে গাইবান্ধায় কৃষি ফসলের ক্ষতি, বিদ্যুৎ বিভ্রাট

ঘূর্ণিঝড় আম্পানে গাইবান্ধায় কৃষিতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। প্রায় পাঁচ ঘণ্টাব্যাপী এ ঝড়ে শাক-সবজি, কলা, পান বরজ এবং ভুট্টাক্ষেত ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

বুধবার বিকেল থেকেই শুরু হয় আম্পানের প্রভাবে ঝড়ো বাতাস ও বৃষ্টি। রাত দেড়টা থেকে এর তীব্রতা বাড়তে থাকে। ভারি বৃষ্টির সাথে শুরু হয় দমকা হাওয়া। চলে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত। এরপর সারাদিনই গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকে।

বুধবার (২০ মে) দিবাগত রাত দেড়টার দিকে ঝড়ো হাওয়া শুরু হলে বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে গোটা জেলা। বৃষ্টির কারণে বৈদ্যুতিক সঞ্চালন লাইনের ত্রুটি ধরতে না পারায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়নি।

জেলা কৃষি অফিস জানিয়েছে, ঝড়ের আগে কৃষক ধান ঘরে তুলতে পারলেও শাক-সবজি, কলা, পান বরজ ও ভুট্টার ক্ষতি হয়েছে।

কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, জেলায় এখনো পঁচিশ হাজার হেক্টর জমির ধান কাটা বাকি আছে। অন্যদিকে আম্পানে পাঁচশ পঁচাশি হেক্টর জমির শাক-সবজি, একচল্লিশ হেক্টর জমির কলা, দশ হেক্টর জমির পান বরজ এবং পনেরো হেক্টর জমির ভুট্টাক্ষেত আক্রান্ত হয়েছে।

গাইবান্ধা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মাসুদুর রহমান বলেন, আবহাওয়া ভালো হলেই ধান কাটা সম্ভব হবে। আরো বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে জমিতে পানি জমে শাক-সবজি ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *